• সোমবার ২৫শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৯ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    লকডাউন ভেঙে রাজশাহীর রাস্তায় মানুষ

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ৩০ এপ্রিল ২০২০ ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

    লকডাউন ভেঙে রাজশাহীর রাস্তায় মানুষ

    সংগৃহীত ছবি

    রাজশাহীতে ‘লকডাউন’ (অবরুদ্ধ) এখন অনেকটাই কাগুজে আদেশে পরিণত হয়েছে। করোনা এড়াতে গত ১৪ এপ্রিল থেকে নগরীসহ পুরো জেলা লকডাউন ঘোষণা করা হলেও রাজশাহীতে লকডাউন ভেঙে রাস্তায় বের হচ্ছেন মানুষ।

    প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষায় লকডাউনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর থাকলেও নানা কৌশলে বাড়ির বাইরে আসছেন মানুষ। সকাল-দুপুর মানুষে গিজ গিজ করছে রাজশাহী মহানগরীর ব্যস্ততম এলাকাগুলো।

    লকডাউনের প্রথম দিকে শহর ফাঁকা দেখালেও এখন নগরীর বিভিন্ন স্থানে মানুষের আনাগোনা বেড়েছে অনেক। গত সপ্তাহের তুলনায় এই সপ্তাহে নগরীর দেখা যাচ্ছে ভিন্ন চেহারা। অথচ গত ১৪ এপ্রিল লকডাউন ঘোষণার পরের দিনগুলো ছিল মানবশূণ্য। তবে চলতি সপ্তাহজুড়েই দেখা যাচ্ছে ভিন্ন চিত্র।

    বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে লোকজন বাড়ি থেকে বের হচ্ছেন। বের হচ্ছেন বিভিন্ন শ্রমজীবী মানুষও। সামাজিক দূরত্ব মানার বিষয়টি এখন কঠোরভাবে তাদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে না। এমনকি অনেকেই মাস্ক না পরেই বের হচ্ছেন। এতে বাড়ছে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি।

    বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) ভ্যানে করে নগরীতে কাপাড়ও বিক্রি করতে দেখা যায় ভ্রাম্যমাণ দোকানীদের। নগরীর সাহেববাজার বড় মসজিদের পেছনে ভ্যানে কাপড়ের পসরা সাজিয়ে বসে ছিলেন তারা। আর এই ভ্যানকে ঘিরেই বিভিন্ন বয়সী মানুষের ভিড় জমে ওঠে।

    এছাড়াও এ সপ্তাহে অটোরিকশা ও রিকশার চলাচল চোখে পড়ার মতো। নগরীর বিনোদপুর, কাজলা, তালাইমারী, সাহেববাজার, রেলগেটের সামনে সারি সারি রিকশা-অটোরিকশা থাকছে দাঁড়িয়ে। তবে এক সপ্তাহ আগেও এতো রিকশা কিংবা অটোরিকশা চলাচল করতে দেখা যায়নি।

    এই সকল চালকরা নানা উপায়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে যাত্রী তুলছেন। তারা আর মানছেন না যাত্রী তোলার নিয়মও। একই অটোরিকশায় ৪ থেকে ৫ জন পর্যন্ত লোক তুলছেন তারা। রিকশার ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম দেখা যায়নি। নগরীর বিভিন্ন জায়গায় একই রিকশায় তিনজন পর্যন্ত লোক তুলতে দেখা গেছে। এই লকডাউন সময়েও চালকরা নানা কৌশলে অতিরিক্ত যাত্রী তুলছেন।

    রাজশাহীর সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, লকডাউনে কঠোরতা একটু শিথিল হয়েছে। এটার কারণ হচ্ছে- আমাদের ১৮টা মন্ত্রণালয়কে খুলে দেওয়া হয়েছে। সীমিত পরিসরে মাঠ পর্যায়ে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ফলে লোকজন কাজে বের হচ্ছে।

    তিনি বলেন, করোনায় যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অনেক সদস্য আছেন। তাই আমাদের এখন ৫০ ভাগ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। এখন ধান কাটার মৌসুম চলছে। ধান কাটা যদি সম্ভব না হয় তাহলে দেশে খাদ্যের অভাব দেখা দিবে। তাই এখন বিষয়গুলোকে গুরুত্বের সাথে দেখা হচ্ছে। তবে সব ক্ষেত্রেই সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে।

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১১:৩৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২০

    swapnochash24.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2021 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।