• সোমবার ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    রমজানের আগেই বিপাকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ২৪ এপ্রিল ২০২০ ৭:০৭ পূর্বাহ্ণ

    রমজানের আগেই বিপাকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা

    সংগৃহীত ছবি

    মহামারি করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে নেতিবাচক প্রভাব দেখা দিয়েছে। দেশের সকল পর্যায়ে ব্যবসা স্থবির হয়ে যাওয়ায় অর্থনীতি বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। এতে করে পবিত্র রমজান মাস শুরু হওয়ার আগেই বিপাকে পড়েছেন রাজধানীর ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। নিজ সংসার চালানো এবং কর্মচারীদের বেতন নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে এসব ব্যবসায়ীদের।

    শুক্রবার একাধিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জানান, প্রতি বছর রমজান মাস আসলেই আমাদের একটি টার্গেট থাকে। রমজানে ব্যবসা করে সারা বছর কর্মচারীদের নিয়ে ভালোভাবে যাতে দিন কাটাতে পারি। সেরকম একটি লক্ষ্য থাকে আমাদের। কিন্তু এবছর করোনার কারণে সব ভেস্তে গেছে।

    বউ বাচ্চা নিয়ে বেঁচে থাকাটাই এখন কষ্টের হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

    এ ব্যাপারে শেওড়াপাড়ার অনি জুয়েলার্সের স্বত্বাধিকারী মো. নাসির উদ্দিন বলেন, প্রতি বছর রমজান মাস আসলে ক্রেতারা কমবেশি গয়না তৈরি করেন বা অনেকে পুরনো গয়নাকে নতুন করে মেরামত করেন। এতে করে রমজান মাসে আমাদের একটি টার্গেট থাকে সেটি পূরণ হয়। কর্মচারীদের নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করি পুরো রমজান মাস। অথচ এবার দোকান খুলতে পারছি না দোকানে দুইজন কর্মচারী, দোকান ভাড়া, বাসা ভাড়া ও সংসার খরচ কিভাবে দিব বুঝতে পারছি না। সবমিলিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছি। এই অবস্থা চলতে থাকলে ঢাকা শহরে বাঁচাটাই দায় হয়ে যাবে বলেও তিনি জানান।

    প্রতিবছর ৮ রমজানের মধ্যেই পোশাকের অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দিতাম। দিন রাত চব্বিশ ঘন্টা কারখানায় পাঁচজন কর্মচারী পোশাক তৈরি করতো। অথচ এবছর দোকান খুলতে পারছি না বলে জানালেন গোল্ড স্টার টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী নুর কামাল খাঁ।

    তিনি বলেন, আর্থিক সংকটের মধ্যে আমাদের দিন কাটছে। জমানো কিছু টাকা ছিল সেটিও শেষ হয়ে গেছে। দোকান ভাড়া কারখানা ভাড়া ও বাসা ভাড়া জমে যাচ্ছে। এগুলো কিভাবে পরিশোধ করব বুঝতে পারছি না। প্রতিবছর রমজান মাসে যে ইনকাম হয় সেটা দিয়ে সারাবছর চলে যায়। অথচ এবছর দোকান খুলতে পারিনি। জানিনা আগামী দিনগুলো কিভাবে চলবো।

    বেচাকেনা নেই কর্তব্যের খাতিরে দোকান খুলে বসে আছি বলে জানালেন নাজ ফার্মেসির স্বত্বাধিকারী ও ফার্মাসিস্ট এইচ এম জাহাঙ্গীর হোসেন। তিনি বলেন, দায়িত্ববোধ থেকে সকাল থেকে রাত অবধি ফার্মেসি খোলা রাখছি। পাঁচজন কর্মচারী নিয়েই বসে আছি লকডাউনের প্রতিদিনই। নির্ধারিত সময়েই দোকান খুলছে বেচাকেনা শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে। কিভাবে কর্মচারীদের বেতন, দোকান ভাড়া ও সংসার খরচ চালাবো বুঝতে পারছি না। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের মতো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের টিকে থাকাটাই মুশকিল হবে বলে তিনি জানান।

    এদিকে, করোনাভাইরাসের কারণে এক মাস নগরীর প্রায় সব দোকান বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায় চরম দুর্দিন কাটাচ্ছেন এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। তাদের একটি দাবি মানবিক দিক বিবেচনা করে দোকান ভাড়া মওকুফের জন্য বাড়ীর মালিকগণ সহনশীল হবেন বলে তারা মনে করেন।

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৭:০৭ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল ২০২০

    swapnochash24.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    দাম কমেছে চালের

    ৩০ এপ্রিল ২০২০

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: গুরুদাসপুর, নাটোর-৬৪৩০
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2020 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।