• রবিবার ৯ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৬শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    মানবদেহে উৎপাদিত গ্যাস করোনা চিকিৎসায় ব্যবহার হবে?

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ০১ জুন ২০২০ ৫:৫৭ অপরাহ্ণ

    মানবদেহে উৎপাদিত গ্যাস করোনা চিকিৎসায় ব্যবহার হবে?

    সারাবিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে ৬২ লাখ ৬৭ হাজার চারশ ৮৮ জন এবং মারা গেছে তিন লাখ ৭৩ হাজার নয়শ ৬১ জন। কিন্তু এখন পর্যন্ত করোনার কোনো টিকা বা চিকিৎসার ওষুধ আবিষ্কার হয়নি।

    চিকিৎসকরা করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের নানা রকম লক্ষণ দেখে চিকিৎসা দিচ্ছেন। করোনার কার্যকর ও কম খরচে চিকিৎসার জন্য গবেষকদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে শক্তিশালী একটি গ্যাস।

    মানুষের শরীরে তৈরি নাইট্রিক অক্সাইড করোনার চিকিৎসায় ব্যবহার হওয়ার বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখছেন বিজ্ঞানিরা। গবেষণায় দেখা গেছে, রক্তনালী স্বাভাবিক রাখতে এবং ফুসফুস থেকে শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিকভাবে চলাচলে সহায়তা করছে নাইট্রিক অক্সাইড।

    নাক কিংবা মুখের মাধ্যমে নাইট্রিক অক্সাইড ব্যবহারের ফলে করোনা আক্রান্ত হয়ে গুরুতর অবস্থায় থাকা রোগীরা সুফল পাচ্ছেন বলেও দাবি করেছেন গবেষকরা।

    ব্রিটিশ কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির গবেষকরা গবেষণাটি করছেন। চার লাখ মার্কিন ডলার বাজেটে গবেষণাটি করা হচ্ছে। আর গবেষণাটির নাম দেওয়া হয়েছে স্যানোটাইজ রিসার্চ।

    গবেষক দলের প্রধান ক্রিস মিলার বলেছেন, এটা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ, আমরা শিগগিরই পরীক্ষা শেষ করবো। তারপর এর অনুমোদনের ব্যাপারে কথা হবে। তিন-চার মাসের মধ্যে সব কাজ শেষ করতে পারবো বলে মনে হচ্ছে।

    তিনি আরো বলেন, নাইট্রিক অক্সাইডের সহায়তায় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা যাবে এবং ফুসফুস সচল রাখতে সহায়তা করবে।

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৫:৫৭ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০১ জুন ২০২০

    swapnochash24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2021 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।