• সোমবার ২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    মহামারি রুখবে রোবট!

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ০৫ মে ২০২০ ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ

    মহামারি রুখবে রোবট!

    সংগৃহীত ছবি

    জাপানি গবেষকরা এমন কিছু অতি ক্ষুদ্র রোবট পরীক্ষায় সক্ষম হয়েছেন, যেগুলো সহজেই মানবদেহে প্রবেশ করে ক্যান্সার সেলের বিরুদ্ধে লড়তে সক্ষম। এসব রোবট তাঁরা ভবিষ্যতের কোনো প্রাণঘাতী ভাইরাসের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত করতে চান।

    পরবর্তী মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সম্ভবত সিনথেটিক পলিমার, প্রোটিন, জিনগত ও জৈব উপাদানে তৈরি অতি ক্ষুদ্র রোবট ব্যবহার করা হবে। সেগুলো মানবদেহে প্রবেশ করে সম্ভাব্য ক্ষতিকর ভাইরাস পার্টিকল ধ্বংসের পাশাপাশি প্রতিরোধ গড়তে ইমিউন সেলকে প্রশিক্ষণও দিতে পারবে।

    এ রকম চিকিৎসা অনেকের কাছে কোনো সাইফাই মুভির কাহিনি মনে হতে পারে। তবে বিষয়টি এখন বাস্তবে প্রয়োগেরও সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। অন্তত কাজুনরি কাটাওকা তা-ই মনে করেন। জাপানের ইনোভেশন সেন্টার অব ন্যানো মেডিসিনের (আইসিওএনএম) এই গবেষক বলেন, “আমরা ‘ইন-বডি হসপিটাল’-এর ধারণা নিয়ে ৯ বছর ধরে কাজ করছি। একটি ন্যানো মেশিনের মাধ্যমে শরীরের অভ্যন্তরে চিকিৎসা কর্মকাণ্ড পরিচালনা এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য। অসংখ্য স্বনির্ভর যন্ত্র শরীরের মধ্যে ছেড়ে দেওয়া হবে, যেগুলো অস্বাভাবিক কিছু আছে কি না তা পরীক্ষা করে দেখবে এবং রোগ নির্ণয়ের পর চিকিৎসা করবে।”

    জাপানে চিকিৎসা খাতে এমন প্রযুক্তির ব্যবহার সংক্রান্ত গবেষণা এত কাল ক্যান্সারকেন্দ্রিক ছিল। দেশটিতে ১৯৮১ সাল থেকে এখন অবধি মৃত্যুর অন্যতম কারণ ক্যান্সার। পঞ্চাশ বা তার চেয়ে বেশি বয়সী জাপানিরা সাধারণত ক্যান্সারে আক্রান্ত হন।

    কাটাওকা বলেন, ‘ন্যানো স্কেল মাইসেলস এত ছোট যে সেগুলো সহজেই ক্যান্সার সেলে প্রবেশ করতে পারে এবং বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে এই প্রযুক্তির ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হচ্ছে।’

    করোনা মহামারির কারণে গবেষকরা এখন এসব অতি ক্ষুদ্র রোবট ভবিষ্যতে নতুন কোনো প্রাণঘাতী ভাইরাসের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা যায় কি না সেই গবেষণা করছেন। টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অধ্যাপক সাতোসি উচিডা এই বিষয়ে বলেন, ‘ম্যাক্রোমলিকুলার ড্রাগস ও বায়োলজিক্যাল কম্পাউন্ড, যা প্রোটিন ও নিউক্লিক অ্যাসিডের ওপর প্রভাব বিস্তার করতে পারে, সেগুলো করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে অপেক্ষাকৃত ভালো প্ল্যাটফর্ম গড়তে পারে। আমাদের ন্যানো মেশিনগুলো প্রোটিন ও নিউক্লিক এসিড শরীরের প্রয়োজনীয় অঙ্গে পৌঁছে দিতে পারবে।’ যেহেতু প্রোটিন ও নিউক্লিওটাইড সরবরাহের ব্যবস্থা এরই মধ্যে তৈরি হয়ে গেছে, সেগুলো ব্যবহার করে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের উপায় নিয়ে গবেষণা বছরখানেকের মধ্যেই শুরু হবে বলে মনে করেন উচিডা। সূত্র : ডয়চে ভেলে।

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, ০৫ মে ২০২০

    swapnochash24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2021 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।