• বৃহস্পতিবার ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    বাহারী ইফতারের দোকান ছাড়াই রাজশাহীতে প্রথম রোজা

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ২৬ এপ্রিল ২০২০ ৪:৪৬ পূর্বাহ্ণ

    বাহারী ইফতারের দোকান ছাড়াই রাজশাহীতে প্রথম রোজা

    ঐতিহ্যবাহী রহমানিয়া হোটেল তাদের স্পেশাল ‘ফিরনী’ ও ইফতার পশরা নিয়ে বসেনি, উপচে পড়া ভিড়ও ছিল না। বাটার মোড়ের জিলাপী আর শামীমের তিলের জিলাপীও ছিল না। আখের রস বিক্রি এবং তা কেনার জন্য লম্বা লাইনও চোখে পড়েনি। এমনই এক রোজার সাক্ষী হলেন রাজশাহীবাসী। প্রথম রোজাতে রাজশাহীতে ছিল না কোন ইফতারী দোকান।

    অতীতে রমজান আসার সাথে সাথে টানানো হতো রং-বেরঙের সামিয়ানা। অভিজাত রেস্তরাঁ থেকে শুরু করে ফুটপাথ। সর্বত্রই বসতো ইফতারের বাজার। বেলা ১২টার পর থেকেই জ্বলতো চুলা। নানা ধরনের মুখরোচক খাবারের সৌরভ বাতাসে মৌ মৌ করতো। দুপুর গড়াতেই বাহারি সব ইফতারের পসরায় সেজে বসত বাজার। বিকেল হলেই ঢল নামত মানুষের। মোটকথা দিন শেষে ধুম পড়ে যেত ইফতার সামগ্রী কেনাবেচার।

    কিন্তু সেই চিরচেনা দৃশ্যপট এবার নেই। এখন যেন কেবলই ফেলে আসা রমজানের স্মৃতি! কোথাও কেউ নেই। এক গভীর শূন্যতায় যেন চারিদিক খা খা করছে। ফাঁকা, সুনসান সড়কগুলো যেন নিষ্প্রাণ হয়ে আছে। খুব সম্ভবত এবারই প্রথম পবিত্র রমজান মাস শুরু হলো এমন এক সময়ে, যখন করোনায় সমগ্র বিশ্বের পাশাপাশি আক্রান্ত ঘনবসতির বাংলাদেশও।

    বর্তমানে লকডাউন চলছে রাজশাহীতে। তাই সব জায়গাতেই প্রায় অচলাবস্থা। করোনার প্রাণঘাতী ছোবল থেকে রক্ষা পাওয়ার অন্যতম উপায় সঙ্গনিরোধসহ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা। সে অবস্থায় দৈনন্দিন জীবনে ধর্মীয় আচার-আচরণসহ বিধিবদ্ধ নিয়মে পরিবর্তন এসে গেছে।

    মসজিদে গিয়ে সংঘবদ্ধভাবে নামাজ না পড়ে ঘরে বসে পড়া; জানাজায় যথাসম্ভব কম যাওয়া ইত্যাদি। বিধি-নিষেধ এসেছে পবিত্র রমজানে তারাবিসহ ঈদের জামাতে নামাজ পড়া নিয়েও। তাই কালের পরম্পরায় চলে আসা ঐতিহ্যবাহী সব ইফতার আয়োজনেও করোনার আঁচ পড়েছে। গেলো বছরও যেসব স্থানে জমজমাট ইফতার বাজার ছিল; সেখানে এখন ভর করেছে পিন পতন নিরবতা। বাঙালির সেহরি, ইফতার ও তারাবি কেন্দ্রীক মাহে রমজানে এসেছে অচেনা এক ভিন্নতা। ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের এ বছর বাড়িতেই করতে হচ্ছে ইফতার আয়োজন।

    গতকাল রাজশাহী নগরীর রেলগেট, রাণী বাজার, গণকপাড়া, সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট, মনিচত্বর ঘুরে ইফতারের কোন দোকান চোখে পড়েনি। তবে খোলা কিছু ফলের দোকান। ফলের দোকানগুলোতে বিক্রি হচ্ছিল মুড়ি, খেঁজুর, লেবু ও শসা। প্রতি কেজি আপেল ১৮০ টাকা, মাল্টা ১৮০-২০০ টাকা, প্রতি প্যাকেট খেজুর ১২০ টাকা, আনারস কেজি প্রতি ৬০ টাকা, কলা ২৫-৩০ টাকা হালি, লেবু প্রতি হালি ৩০ টাকা এবং শসা ৪০ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

    ভ্রাম্যমান ফল বিক্রেতা টুটুল বলেন, আমি গত তিন বছর ধরে ফলের ব্যবসা করছি। বর্তমান পরিস্থিতে পেট চালানোর দায়ে ও মহাজানের টাকা পরিশোধ করতে ফলের দোকান নিয়ে বের হয়েছি। ফলের পাশাপাশি ইফতারের প্রয়োজন মেটাতে মুড়ি, খেজুর, লেবু বিক্রি করছি। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক এ বছর বাহারি ইফতার বিক্রি করছি না। আমাদের ব্যবসাতে ধ্বস। খদ্দের না আসলে আমাদের জিনিসপত্র কিনবে কে? এভাবে চলতে থাকলে না খেয়ে থাকতে হবে বলে দুঃখ প্রকাশ করেন এই ফল ব্যবসায়ী।

    রাজশাহী মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (সদর) মো. গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, রমজানে হোটেল-রেস্তোরাঁ বা দোকানপাট খোলার বিষয়ে আগের নির্দেশনাই বহাল রাখা হয়েছে। এর আওতায় সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত কেবল কাঁচা বাজার, নিত্যপণ্যের দোকান খোলা রাখা যাচ্ছে। আর বেলা ২টার পর কেবল ফার্মেসি ছাড়া অন্য কোনো দোকানপাট খোলা রাখা যাবে না। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত রমজান মাসেও এ নিয়মই বহাল থাকবে। এ বছর ইফতার পার্টিও বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

    এদিকে, বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি রাজশাহী শাখার সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান রিংকু বলেন, করোনা সংকটের কারণে আমাদের ব্যবসায়ীরা ভালো নেই। রমজানের মূল ব্যবসা ইফতার ঘিরেই। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার কারণে সব হোটেল-রেস্তোরাঁ এখন বন্ধ। শ্রমিকরা বেকার হয়ে আছেন। তাদের অনেক কষ্টে দিন যাপন করতে হচ্ছে। এছাড়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার কারণে প্রতিদিন গড়ে তাদের অন্তত ২০ লাখ টাকার লোকসান হচ্ছে বলে জানান তিনি।

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৪:৪৬ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০২০

    swapnochash24.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: গুরুদাসপুর, নাটোর-৬৪৩০
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2020 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।