• বুধবার ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    ঘূর্ণিঝড় অশনির আশঙ্কায় আগেই আম পাড়ছেন চাষিরা

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ০৮ মে ২০২২ ৮:৩৩ অপরাহ্ণ

    ঘূর্ণিঝড় অশনির আশঙ্কায় আগেই আম পাড়ছেন চাষিরা

    সংগৃহীত ছবি

    সময়মতো বৃষ্টি না হওয়ায় আমের ফলন কম। তার ওপর একদিন পরেই ঘূর্ণিঝড়ের শঙ্কা। তাই নির্ধারিত সময়ের আগেই আম পাড়তে শুরু করেছেন সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার আমচাষিরা। গত বৃহস্পতিবার থেকে উপজেলার বাজারগুলোতে গোবিন্দভোগ জাতের আম বিক্রি শুরু হয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে অনেকে অপুষ্ট হিমসাগর আম বাজারে বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

    জানা যায়, সরকারি নির্দেশনায় উপজেলায় আম সংগ্রহের সময়সীমা নির্ধারণ করে দেয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। নির্দেশনা অনুযায়ী ৫ মে থেকে গোবিন্দভোগ, গোপালভোগ, বোম্বায়, ক্ষীরশাপাতি, গোলাপখাস ও বৈশাখীসহ অন্যান্য আগাম স্থানীয় জাতের আম; ১৬ মে থেকে হিমসাগর; ২৪ মে থেকে ল্যাংড়া ও পয়লা জুন থেকে আম্রপালি আম বাজারে তোলার নির্দেশনা দেওয়া হয়। তবে ঘূর্ণিঝড় অশনির সম্ভাবনা থাকায় এবার সরকারি নির্দেশনা কিছুটা শিথিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছে উপজেলা কৃষি বিভাগ। তাই গত বৃহস্পতিবার থেকে অনেক চাষি গোবিন্দভোগ আম সংগ্রহ শুরু করেছেন বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

    উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছর উপজেলায় প্রায় সাড়ে ৭৪৫ হেক্টর জমিতে আমের চাষ করা হয়েছে। উপজেলায় সরকারি তালিকাভুক্ত ৪৮৬টি আমবাগান ও ১ হাজার ৫০০ আমচাষি রয়েছেন।

    মৌতলা ইউপি চেয়ারম্যান ও আমচাষি ফেরদাউস মোড়ল বলেন, করোনা ও ঘূর্ণিঝড়ের কারণে গত কয়েক বছর চাষিরা আম চাষে লোকসান গুনছেন। চলতি মৌসুমে ফলন কিছুটা কম। এবার চাষিরা আশা করছিলেন ভালো দামে আম বিক্রি হবে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী আম পাড়ার জন্য আমাদের চাষিদের বলা হয়েছে। কিন্তু একদিন পর ঘূর্ণিঝড় হতে পারে এ শঙ্কায় অনেকে গাছ থেকে আগাম আম পাড়তে শুরু করেছেন। এসব আম কাচা বিক্রি করা হবে।

    উপজেলার কুশুলিয়া ইউনিয়নের গোবিন্দপুর এলাকার আম ব্যবসায়ী ফারুক হোসেন বলেন, সরকারি নির্দেশনায় গত বৃহস্পতিবার থেকে গোবিন্দভোগ আম সংগ্রহ শুরু করা হয়েছে। জেলা ও উপজেলার বাজারের প্রতিটি আমের আড়তে শুধুমাত্র গোপালভোগ, গোবিন্দভোগসহ আগাম জাতের আম বিক্রি শুরু হয়েছে। প্রথম দিন প্রতিমণ কাঁচা আম ১ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

    অন্য জাতের আম পাড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে ব্যবসায়ীরা বলেন, অনেকে গোপনে বাগান থেকে হিমসাগর আম পেড়ে বিক্রি করছেন। তবে ওই আম ১৬ তারিখের আগে জেলা-উপজেলার বাজারে বিক্রি করা হবে না।

    উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এনামুল ইসলাম বলেন, এবার উপজেলায় আমের ফলন কিছুটা কম। সময়মতো বৃষ্টি না হওয়ায় অনেক গাছেই ফলন হয়নি। যেসব গাছে আম হয়েছে সেগুলোও আকারে ছোট। একদিন পর ঘূর্ণিঝড় অশনির কথা শোনা যাচ্ছে। এ জন্য চাষিদের আগাম জাতের আম পাড়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী গোপনে অপুষ্ট হিমসাগর আমও পারছেন বলে অভিযোগ পেয়েছি। তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    বিদেশে আম রপ্তানির বিষয়ে কৃষি কর্মকর্তা বলেন, আম রপ্তানির জন্য এবারও আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে শুধুমাত্র নির্ধারিত বাগানের আম বিদেশে রপ্তানি করা হবে।

    স্বপ্নচাষ/জেএআর

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৮:৩৩ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০৮ মে ২০২২

    swapnochash24.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2022 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।