• সোমবার ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    করোনার প্রকোপে দুশ্চিন্তায় বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকপ্রাপ্ত এই কৃষক

    অনলাইন ডেস্ক

    ২০ এপ্রিল ২০২০ ১:১৪ অপরাহ্ণ

    করোনার প্রকোপে দুশ্চিন্তায় বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকপ্রাপ্ত এই কৃষক

    কৃষক আমির হোসেন সপ্তাহে প্রায় ২৫ মণ টমেটোর ফলন পাচ্ছেন। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে ক্রেতা সংকটে সপ্তাহখানেক আগে টমেটো বিক্রি করেছেন দেড় টাকা দরে, ফেলেও দিয়েছেন অনেক। এখন মাঝে মাঝে ক্রেতা আসলে বেঁচে থাকার মতো দাম পেলেও সামনের দিনগুলোতে সবজির সরবরাহ ও বিক্রির নিশ্চয়তা নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক পাওয়া এ সফল কৃষক।

    বর্তমানে ২৮ শতক জমিতে টমেটো, ১৮ শতক জমিতে ধুন্দল, ৮৬ শতক জমিতে মাল্টা, ৭০ শতক জমিতে বোরো ধানের চাষ করেছেন কৃষক আমির হোসেন। তবে প্রতিটি ফসলের জমির ফাঁকে সাথী ফসল হিসেবে কলা, কঁচু, আদা, পেঁয়াজ-রসুন, হলুদ, ঘাষের চাষও রয়েছে।

    আমির হোসেন বলেন, ‘আমার সবজি চাষের মধ্যে সাথী ফসল হিসেবে আরও তিন প্রকার সবজির চাষ হচ্ছে। এতে এক ইঞ্চি জমিও খালি পড়ে নেই। তবে, করোনার প্রাদুর্ভাবে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় হাট-বাজার না বসার কারণে চাহিদা কমে যাওয়ায় খুবই বিপদে আছি।

    তিনি বলেন, গত হাটে তো ক্রেতা না পেয়ে টমেটো ফেলে দিয়ে এসেছি। এখন চিন্তা, আগামীর দিনগুলোতে কি হবে!

    সফল এ কৃষক বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের চাষাবাদে যথেষ্ঠ উৎসাহ-অনুপ্রেরণা দিচ্ছেন। কিন্তু সরবরাহ ও বেচাকেনা নিশ্চিত না করা গেলে ধ্বংস হবে কৃষক শ্রেণী। এতে লোকসান গুণতে হলে হাল ছেড়ে দেওয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না।

    আমির হোসেন জানান, গত বছর বন্যার কারণে তিনিসহ এ অঞ্চলের কৃষকেরা বেশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিলেন। সেই ক্ষতির রেশ না কাটতেই আবারও ক্ষতির মুখে পড়লে ‘নিঃস্ব’ হবেন কৃষকেরা।

    কৃষিতে বিপ্লব ঘটিয়ে সাবলম্বী হওয়ার পেছনের বড় কারণ কি ছিলো এমন এক প্রশ্নের উত্তরে এই আদর্শ কৃষক বলেন, ‘প্রথম থেকেই আমি এক ফসলের সঙ্গে সাথী ফসল হিসেবে আরও তিন রকম সবজির চাষ করেছি। জমির আইলে ঘাস চাষ করেছি। ওই ঘাস থেকে আমার ২৫টি ছাগল, দুই-তিনটি গরু পালন করছি। এছাড়াও জমিতে জৈব সারের ব্যবহার বেশি করেছি।’

    কৃষিতে কঠোর পরিশ্রমের বিকল্প নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ১৯৮৬ সালে যখন কৃষি কাজে আসি তখন আমি জমির কাজ করতাম, স্ত্রী ‘পানি ছেঁচা ডোঙ্গা দিয়ে’ জমিতে পানি দিতেন। ওই সবজি আমি স্থানীয় ভরতখালীর হাটে বিক্রি করি।

    আমির হোসেনের সঙ্গে কথার ফাঁকে জানা যায়, পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র থাকাকালে অর্থাভাবে পড়াশুনা বন্ধ হওয়ায় ১৯৮৬ সালে এক টুকরো জমিতে চাষাবাদের হাতে খড়ি তার। শুরুতেই পেঁপে ক্ষেতের নিচে চাষ করেন আদা। এতে উভয় ফসলেই ভালো ফলন পেয়ে উৎসাহ বেড়ে যায় আমির হোসেনের। এরপর থেকে প্রতিটি ফসল চাষেই ‘সাথী ফসল’ হিসেবে আরও তিন রকম সবজি রাখেন। এভাবে আর পিছনে ফিরতে হয়নি কৃষক আমির হোসেনের। গত ৩০ বছরে সবজি বিক্রির টাকায় তিন একর জমি কেনেন, আরও এক একর জমি বর্গা নিয়ে হরেক রকম সবজি চাষাবাদ করছেন। ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে গ্রহণ করেন বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার। এক ছেলে ও দুই মেয়েকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করেছেন। ছেলে একটি সরকারি চাকরিও পেয়েছেন, বিয়ে হয়েছে বড় মেয়ের, ছোট মেয়ে পড়ছেন বগুড়ার একটি উচ্চ বিদ্যালয়ে। সবকিছুই হয়েছে এই চাষের টাকায়।

    স্থানীয় মুক্তিনগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য পরিমল কুমার বলেন, ‘কৃষক আমির হোসেন একজন আদর্শ কৃষক। তিনি কৃষি বিপ্লবের মাধ্যমে গোটা এলাকাকে অন্যভাবে তুলে ধরেছেন।’

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১:১৪ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২০ এপ্রিল ২০২০

    swapnochash24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2021 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।