• বুধবার ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    এডিস নিধনে চিরুনি অভিযান পরিদর্শনে মেয়র আতিকুল ও মন্ত্রী তাজুল

    স্বপ্নচাষ ডেস্ক

    ১৮ মে ২০২০ ৭:১০ অপরাহ্ণ

    এডিস নিধনে চিরুনি অভিযান পরিদর্শনে মেয়র আতিকুল ও মন্ত্রী তাজুল

    সংগৃহীত

    ডেঙ্গু থেকে নগরবাসীকে সুরক্ষা দিতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) চলমান বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান (চিরুনি অভিযান) পরিদর্শন করেছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এবং করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

    সোমবার (১৮ মে) রাজধানীর বারিধারায় তারা চিরুনি অভিযান পরিদর্শনে যান। এ সময় দুজনে বারিধারায় ৯ নম্বর পার্ক রোডের একটি নির্মাণাধীন ভবনে বিপুল পরিমাণ এডিস মশার লার্ভার খোঁজ পান।

    পরে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, আমরা সকলে জানি এডিস মশা আবাসিক-অনাবাসিক ভবনে বংশবিস্তার করে। বিশেষ করে নির্মাণাধীন ভবন আমাদের জন্য হুমকিস্বরূপ। এজন্য আমরা সর্বসাধারণের কাছে বিভিন্নভাবে বিষয়টি অবহিত করেছি। কোনো ভবনে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে মর্মে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। এটা খুব দুঃখজনক যে, বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও নির্মাণাধীন বাড়ির মালিকরা সচেতন হচ্ছেন না। তারা মানুষের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছেন। এজন্য আমি কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিচ্ছি।

    ডিএনসিসির মেয়র আতিকুল বলেন, এডিস মশার লার্ভা পাওয়ার কারণে আমরা ইতোমধ্যে অনেক ভবন মালিককে আর্থিক জরিমানা করেছি। তবে এখন সময় এসেছে তাদের সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার, তাতে যদি তারা সচেতন হন।

    মেয়র ঢাকাবাসীকে প্রতি তিন দিন পরপর জমে থাকা পানি ফেলে দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যারা ভবন তৈরি করছেন তারা অনেক টাকার মালিক। কিন্তু তাদের অবহেলার জন্য আমরা সবাই ঝুঁকিতে আছি।

    মেয়র শহরবাসীর প্রতি এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এতে আপনি নিজে, আপনার পরিবার, সমাজ, শহর ও রাষ্ট্র বেঁচে থাকবে।

    ডেঙ্গু থেকে নগরবাসীকে সুরক্ষা দিতে আজ সোমবার চিরুনি অভিযানের তৃতীয় দিনে মোট এক হাজার ৩৪৯টি বাড়ি, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন ইত্যাদি পরিদর্শন করা হয়। এসময় বিভিন্ন বাড়ি, প্রতিষ্ঠান, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন ও পরিত্যক্ত জায়গায় এডিসের লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় সাতটি মামলায় মোট ৭৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

    অঞ্চল-১ (উত্তরা) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা জুলকার নায়ন ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ারুল হালিম, অঞ্চল-৩ (মহাখালী) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মীর নাহিদ আহসান, অঞ্চল-৫ (কারওয়ান বাজার) এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ হোসেন বিভিন্ন এলাকায় এসব অভিযানে নেতৃত্ব দেন।

    জানা গেছে, গত ১৬ মে শুরু হওয়া চিরুনি অভিযানে এবং গত ১০ মে শুরু হওয়া ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আজ পর্যন্ত সর্বমোট দুই লাখ ৩৮ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

    স্বপ্নচাষ/এসএস

    বিষয় :

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৭:১০ অপরাহ্ণ | সোমবার, ১৮ মে ২০২০

    swapnochash24.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2021 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।