• মঙ্গলবার ১৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

    শিরোনাম

    স্বপ্নচাষ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন  

    আমরা এখনো ফিরে আসতে পারবো যদি…

    শাহাজাদা মিলন

    ১২ জুন ২০২০ ১:৪৮ পূর্বাহ্ণ

    আমরা এখনো ফিরে আসতে পারবো যদি…

    শাহাজাদা মিলন

    টিভির পর্দায় দেখে কিংবা এফএম রেডিও-তে শুনতে অথবা ফেসবুকে চোখের সামনে যখন দেখতে পান নিউজিল্যান্ড বিশ্বে প্রথম করোনামুক্ত দেশ! অতৃপ্তির ঢেকুর উঠে নিশ্চয়।

    একটু বলে নিই, একটু ভুল হচ্ছে। এর সাথে মন্টিনিগ্রো, ইরিত্রিয়া,পাপুয়া নিউগিনি, সিসিলি, হলিসি, পূর্ব তিমুর, সেইন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিস এই দেশগুলোও করোনামুক্ত এখন!!

    একটু আফসোস লাগছে? ভাবছেন বাংলাদেশটা যদি করোনামুক্ত হতো!! তাহলে আমাদেরকে একটু তাদের জনসংখ্যা, মাথা পিছু আয়, উন্নত মানসিকতা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করা উচিত।

    নিউজিল্যান্ড দেশ নিয়েই একটু জানা হোক। তাদের জনসংখ্যা প্রায় ৪৮ লাখের মতো অর্থাৎ ৪.৮ মিলিয়ন। আয়তন ২৭০৫৩৪ বর্গ কি.মি। মাথাপিছু আয় ২৬২০০ ডলার। সরকার ব্যবস্থা যেমন উন্নত, সাধারণ মানুষদের মানসিকতা আরও বেশি উন্নত।

    নিউজিল্যান্ডে প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী পাওয়া যায় ২৮ ফেব্রুয়ারি, আর শেষ রোগী ২২ মে। তিন মাসের বেশি সময় সাধারণ লোকেরা নাকি বাসার ভিতরেও নিরাপদ দূরত্ব রেখেছিল। আমাদের মতো চায়ের দোকানে বিশেষজ্ঞ হবার ঐতিহ্য তাদের নেই।

    সরকারের পাশাপাশি নিজেরাও কঠোরভাবে চার দেয়ালের ভিতরে আটকে রাখার ফল পেয়ে গেছে। বন্দি জীবন শেষে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে শুরু করছে। কি আফসোস হচ্ছে না-তো!!

    আর আমরা চলেছি ঠিক নিউজিল্যান্ডের বিপরীত। প্রমান দিচ্ছি! আমরা পুলিশ কিংবা আর্মি দেখলে দৌড় দিয়ে পালিয়েছি, তারা চলে গেলে আবার আড্ডা জমিয়েছি পাড়ার গলিতে। বাজারে গেছি, কিন্তু কয়জন নিয়ম মেনে বাজার করেছি? ঈদের সময়ে যে যেভাবে চেষ্টা করেছি বাড়ি যেতে।

    বিষয়টা এমন ছিল এটাই জীবনের শেষ ঈদ। শহর থেকে এ ভাইরাসকে গ্রামে ছড়িয়েছি আমাদের ভুলে। খেসারতও আমাদের দিতে হচ্ছে প্রতিদিন আক্রান্তের হার দেখে।

    অনেকে সরকারের বিপরীতে কথা বলছেন। বাংলাদেশ সরকার কি আপনাকে অনুরোধ করেছিল ঈদে বাড়ি যেতে? ভাইরাসকে পরিবারের মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছি ছোট ছোট ভুলে। আর যারা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে পারেননি কতো অসহায় হয়ে মারা যাচ্ছেন প্রায় এই ধরণের খবর আমরা শুনে আফসোস করছি। আফসোস করছি ফেসবুকের ওয়ালে।

    তবে আমরা এখনো ফিরে আসতে পারবো যদি নিম্ন আয়ের, মধ্যবিত্ত মানুষদের খাদ্যের জোগানটা অন্তত একমাস করতে পারি। রাজনৈতিক নেতারা (অধিকাংশ ভাল) নিজেদের পকেটে না ভরে জনগণের কাজে লাগান। বিত্তশালীরা শুধু মুনাফার পেছনে না ছুটে কর্মচারীদের বিপদকালীন ভাতা ও বেতন দিয়ে দিলে কর্মচারীরাও বাসায় থাকবে। ব্যবসায়ীরা পণ্যের দাম হাতের নাগালে রাখলে সাধারণ জনগণ সবচেয়ে বেশি উপকার পেত।

    অধিকাংশ মানুষ খাবার জোগানোর পিছনে ছুটছে। এই জায়গায় যদি সরকার একমাস সব ধরনের প্রজেক্ট বাদ দিয়ে খাবারের নিশ্চয়তা ও ফ্রি চিকিৎসা সহায়তা দিতে পারে তাহলে করোনার হাত থেকে নবম দেশ হিসেবে মুক্ত হতে পারবো আমরা।

    (ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)
    লেখক : চাকরিজীবী।

    স্বপ্নচাষ/আরএস

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১:৪৮ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০

    swapnochash24.com |

    advertisement

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    advertisement
    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
    advertisement

    সম্পাদক : এনায়েত করিম

    প্রধান কার্যালয় : ৫৩০ (২য় তলা), দড়িখরবোনা, উপশহর মোড়, রাজশাহী-৬২০২
    ফোন : ০১৫৫৮১৪৫৫২৪ email : swapnochash@gmail.com

    ©- 2021 স্বপ্নচাষ.কম কর্তৃক সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।